বাংলা কমিক্স – Comকথা

Avatar photo
In the event of 'Comকথা' - L-R, Saptadip Dey Sarkar, Nirupam Majumdar, Sujog Bandhopadhyay, harsho, Biswadeb Ganguli, Roy (moderator of the oxford event)

ছোটবেলার হারিয়ে যাওয়া দিনগুলো বোধহয় আবার ফিরে পাবো ‘Comকথা’, বাংলা কমিক্স এর মাধ্যমে। পুজোয় প্রকাশিত হতে চলেছে এদের প্রথম সংস্করণ। ১৬ই জুলাই ২০২৩,পার্ক স্ট্রিটের অক্সফোর্ড বুক স্টোরে এই নিয়ে একটি আলোচনা সভা হয়ে গেল। কলমে: রাজকুমার মুখার্জী

গত ১৬ ই জুলাই ২০২৩,পার্ক স্ট্রিটের অক্সফোর্ড বুক স্টোরে এক আলোচনা সভার আয়োজন করেছিলেন ‘এপিজে বাংলা সাহিত্য উৎসব‘– ‘বাংলা কমিক্সের নতুন অধ্যায়’। আলোচনায় ছিলেন ‘Comকথা’ র সম্পাদক বিশ্বদেব গঙ্গোপাধ্যায়। এছাড়াও ছিলেন সুযোগ বন্দ্যোপাধ্যায়, সপ্তদ্বীপ দে সরকার, হর্ষমোহন চট্টরাজ এবং শঙ্খ ব্যানার্জি। অনুষ্ঠানটির সঞ্চালনায় ছিলেন রয় চৌধুরী ( প্রাক্তন রেডিও জকি)। আলোচনার উদ্দেশ্য ছিল কমিকসকে আবার নতুন আঙ্গিকে উপস্থাপন করা। কমিকস বলতে সাধারণ বাঙালির মনে ‘বাঁটুল দি গ্রেট’, ‘হাঁদাভোঁদা’, ‘নন্টে ফন্টে’, ‘অরণ্যদেব’, ‘ম্যানড্রেক’ — এদের নাম সবার আগে মনে পড়ে যায়। পরবর্তী সময়ে এদের হাত ধরে ‘চাচা চৌধুরী ও সাবু’, ‘ছোটা ভীম’, ‘টিনটিন’, ‘আ্যস্টেরিক্স’ – এদের আগমন।

নারায়ণ দেবনাথের পরে, বিশেষত বাংলা ভাষায় বানানো (অন্য ভাষা থেকে তর্জমা করে নয়) কমিকস, অনেকে করেছেন কিন্তু জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন ক’জন! ধনাত্মক অব্যয় এর ব্যবহার নারায়ণ বাবু দেখিয়ে দিয়ে গেছেন। বাঁটুল দার লোহার সাইকেল থেকে আওয়াজ হচ্ছে “ধ্যানাৎ, ধ্যানাৎ” — এক প্রকৃষ্ট উদাহরণ।

রিড বেঙ্গলি বুকস এর কর্ণধার প্রীতম সেনগুপ্তর উদ্যোগে এক নতুন কমিক্স ম্যাগাজিন প্রকাশ হতে চলেছে। এই ম্যাগাজিনের মাধ্যমে শুধুমাত্র ছোটরা নয়, বড়রাও তাঁদের হারিয়ে যাওয়া ছোট বয়সকে নতুন করে ফিরে পাবেন বলে বিশ্বাস রাখেন সম্পাদক বিশ্বদেব গঙ্গোপাধ্যায়।

সুযোগ বন্দ্যোপাধ্যায়, কমিক্সের ইলাস্ট্রেশন বা ছবির রূপকার, মনে করেন সাহিত্য নয়, সিনেমা নয়, কমিক্স একটা সম্পূর্ণ আলাদা মাধ্যম। তাই কমিকস বানানোর আগে মাথায় রাখতে হবে গল্পটা যেন সুন্দর হয় অর্থাৎ গ্রহণযোগ্য হয়।

Sujog Bandhopadhay speaking at the event

সপ্তদ্বীপ দে সরকারের যুক্তিটি আমাদের সকলকে বেশ ভাবিয়ে তুলেছে। মানুষের বই পড়ার অভ্যাস দিনে দিনে কমে যাচ্ছে। টিভি, কেবিল টিভি, ইন্টারনেট এইসব অডিও ভিসুয়াল মাধ্যম মানুষকে বই বিমুখ করে তুলেছে। আমরা এখন সচরাচর বাচ্চাদের হাতে কমিকস তুলে দিই না। কিন্তু কেন? বই পড়ার বিকল্প তো কখনো অডিও ভিসুয়াল হতে পারে না। তাহলে কমিকসকে বাঁচাতে গেলে আরো অনেক বেশি কমিক্স প্রকাশের দরকার। কমিকসের গল্প যেন গ্রহণযোগ্য হয়। গল্পের উপরে দাঁড়িয়ে থাকে কমিক্স।

হর্ষমোহন চট্টরাজ কিছুটা আক্ষেপের সুরে বলেন যেখানে বই বিক্রি হতে পারে সেখানে কমিকস বিক্রি হয় না কেন? কমিক্সের মধ্যে দিয়ে যদি সমসাময়িক ঘটনা কে তুলে ধরা যায়, তবে কমিকস কেন পপুলার হবে না? হর্ষমোহনের কথা শুনতে শুনতে মনে পড়ে গেল আমূল মাখনের বিজ্ঞাপনের কথা। একটি ছবি এবং একটি সমসাময়িক স্লোগান যদি বিজ্ঞাপনকে মনোগ্রাহী করতে পারে, তাহলে কমিকস নয় কেন?

The event going on

See Also
Kerala Story

রয় চৌধুরীকে ধন্যবাদ জানাতেই হয়। সুষ্ঠু সঞ্চালনা ও সুন্দর উপস্থাপনার জন্য হাততালি ওনার অবশ্যই প্রাপ্য। ঘরোয়া অথচ সুসংহত অনুষ্ঠানের জন্য সাধুবাদ জানাতে হয় এপিজে বাংলা সাহিত্য উৎসবকে।

কল্পবিজ্ঞান, রহস্য রোমাঞ্চ, পৌরাণিক ইত্যাদি অনেকগুলি ছোট ছোট গল্পকে কমিক্সের মাধ্যমে প্রকাশ করতে চলেছে ‘Comকথা’ ম্যাগাজিন। কম বেশি একশ’ পাতার বইটির দাম মোটামুটি দেড়শ টাকা হবে আশা করা যায়। পুজোর আগেই প্রকাশ হবে। এবারে পুজোয় ছোট বড় সবার নতুন কাপড়ের সঙ্গে পুজো স্পেশাল ‘Comকথা’ কমিক্স বইটি সংগ্রহ করতেই হবে। পুজোর পাঁচ দিন আনন্দ করে কাটাতে কাটাতে কমিক্সের পাতায় চোখ না রেখে উপায় নেই।

After Event

নতুন রূপে কমিকসকে দেখার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে আছি। আশা রাখি, বাঙালি আবার ‘Comকথা’ র হাত ধরে নতুন করে কমিকস পড়া শুরু করবে।

What's Your Reaction?
Excited
5
Happy
2
In Love
0
Not Sure
2
Silly
0
View Comments (0)

Leave a Reply

Your email address will not be published.


Scroll To Top